মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

প্রখ্যাত ব্যক্তিত্ব

মোহাম্মদ তোয়াহা ভাষা আন্দোলনের একজন সক্রিয় কর্মী এবং রাজনীতিবিদ ছিলেন। এই আন্দোলনের সময় তাকে অন্যমত একজন ছাত্র নেতা হিসাবে বিবেচনা করা হতো।[১]

মোহাম্মদ তোয়াহা তত্কালীন [[নোয়াখালী জেলা|নোয়াখালীর লক্ষীপুরের কুশাখালি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ১৯৩৯ সালে তিনি ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষা দেন। পরে ১৯৪৮ সালে তিনি রাষ্ট্র বিজ্ঞানে তিনি এমএ সম্পনন করেন।

তোয়াহা আন্দোলনের প্রারম্ভিক অংশ সময় ছিল সত্যিকার অর্থেই সক্রিয় ছিলেন। তিনি ভাষা আন্দোলনের শুরু থেকে তিনি অধিকাংশ পোষ্টার, নিবন্ধ, লিফলেট তৈরী করেছিলেন। ১১ মার্চ, ১৯৪৮ তারিখে যখন তোয়াহার নেতৃত্বে একটি দল সচিবালয়ে খাজা নাজিমুদ্দিনের কাছে একটি স্মারকলিপি জমা দিতে যায় তখন পুলিশ তাকে গ্রেফতার করা। পরে তিনি তাদের দ্বারা নির্যাতন হন এবং অসুস্থতা কাটিয়ে উঠতে তাকে হাসপাতালে একটা সপ্তাহ থাকতে ছিল হয়েছিল।

রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম কমিটি এর একজন নেতা হিসেবে, তোয়াহা সরকারের সাথে সকল ধরনের বৈঠকে অংশ নিতেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরফজলুল হক হলের ভিপি ছিলেন। যখন মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ সেখানে এসেছিলেন, তোয়াহা তাকে তাদের ভাষা চাহিদা সম্পর্কে একটি স্মারকলিপি পেশ করেছিলেন। সরকার যখন আরবি স্ক্রিপ্ট ব্যবহার করে বাংলা লেখার জন্য প্রচারনা চালাচছিল তখন তনি এর বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন। সর্বদলীয় কেন্দ্রীয় রাষ্ট্রভাষা কর্মী পরিষদে তিনি যুব লীগের সংবাদদাতা ছিলেন। ১৯৫২ সালের শেষের দিকে ছাত্র রাজনীতিতে যুক্ত থাকার কারণে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। তিনি দুই বছর পরে মুক্তি পান এবং ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে অংশগ্রন করেছিলেন যেখানে যুক্তফ্রন্ট জয়ী হয়েছিল। প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য হিসেবে তিনি নির্বাচিত হন [২]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

২৯ নভেম্বর ১৯৮৭ সালে মোহাম্মদ তোয়াহা মারা যান।

ছবি


সংযুক্তি



Share with :

Facebook Twitter